Breaking

Monday, June 15, 2020

''বিজয়'' ঘোষণা দিয়েছে ফ্রান্স করোনার বিরুদ্ধে


ফ্রান্স ধীরে ধীরে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে করোনাভাইরাসে প্রথম জোয়ারে। যদিও এখনো সংক্রমণ এবং মৃত্যু থামেনি তবুও দীর্ঘ লকডাউনের পর স্বাভাবিক জীবনের ফিরতে শুরু করেছে দেশটির জনগণ। দেশটির ''প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো'', এরমধ্যেই করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে প্রথম ''বিজয়'' ঘোষণা করেছেন। এ ঘোষণা দেন তিনি ''রোববার টেলিভিশনে''।

প্যারিসসহ গোটা ফ্রান্সকে আগামী সোমবার (১৬ জুন) গ্রিন জোনে পরিণত হবে অর্থাৎ সারাদেশে সতর্কতা সর্বনিম্ন করা হবে বলেন প্রেসিডেন্ট 'ইমানুয়েল ম্যাক্রো'। প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো বলেন যে এরফলে দেশটিতে ক্যাফে এবং রেস্টুরেন্টগুলো সম্পূর্ণরূপে খুলতে পরবে।

এই প্যানডেমিকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শেষ হয়নি তবে আমি প্রথম জয়ের জন্য আনন্দিত বলেন প্রেসিডেন্ট 'ইমানুয়েল ম্যাক্রো'।

প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো বলেন যে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ফ্রান্স এবং ইউরোপকে অন্য দেশের উপর নির্ভরশীলতা কমানোর জন্যও কাজ করবেন বলে ঘোষণা দেন তিনি। প্রেসিডেন্ট 'ইমানুয়েল ম্যাক্রো' আরও বলেন যে আমি চাই আমরা যে শিক্ষা পেয়েছি সেটা যেনো কাজে লাগাতে পারি




পরিসংখ্যান বিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্য মতে জানা গেছে যে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন ৪০৭ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন আর মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের। পরিসংখ্যান বিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্য মতে এই পর্যন্ত ফ্রান্সে করোনা ভাইরাসে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৭ হাজার ২২০ জন। য়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারসের মাধ্যমে জানা গেছে যে এরমধ্যে মারা গেছেন ২৯ হাজার ৪০৭ জন, আর সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ৭২ হাজার ৮৫৯ জন। আবার, চীনের স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে চীনে নতুন করে ৪৯ করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। জানা গেছে যে এদের মধ্যে ৩৯ জন স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত হয়েছেন। স্থানীয় সংক্রমণের মধ্যে রাজধানী বেইজিংয়েই ৩৬ জন এবং হুবেই প্রদেশের ৩ জন।

জানা গেছে যে দক্ষিণাঞ্চলীয় ফেংটাই জেলার ডেপুটি হেড ঝৌ ইউকিংকে পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে, নতুন করে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে ব্যর্থ হওয়ায়।

রাজধানী বেইজিংয়ে নতুন করে বেশি কিছু করোনা রোগী ধরা পড়ার পর এ সিদ্ধান্ত আসে বলেন ''বেইজিং ডেইলির'' বরাতে অনলাইন সংবাদমাধ্যম সিজিটিএন জানিয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে যে ফেংটাই জেলার জিনফেডি মার্কেটের কিছু লোকের সংস্পর্শে আসার কারণে তারা সংক্রমিত হয়েছে।

জানা গেছে যে চীনে এই পর্যন্ত ৮৩ হাজার ১৮১ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। মোট মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৬৩৪ জনের। ''বেইজিং ডেইলির'' বরাতে অনলাইন সংবাদমাধ্যম সিজিটিএন জানিয়েছে যে নতুন করে ৪৯ জন শনাক্ত হলেও কেউ মারা যাননি।

No comments:

Post a Comment