Breaking

Monday, July 20, 2020

ট্রাম্পের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা, ফাঁস করলেন করোনার ভয়াবহ তথ্য


মোটামুটি নিশ্চিত পুরো পৃথিবী যে চীনের উহান থেকে শুরু করোনা ভাইরাস বিষয়টি নিয়ে। এবার কিন্তু পাওয়া গেলো আরেক চাঞ্চল্যকর তথ্য। মার্কিন সরকারের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা টমাস ফিলিপসন বলেন যে চীনে আঘাত হানার তিন মাস আগেই নভেল করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সম্পর্কে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সতর্ক করা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন। এ কথা অনেক জোর গলায় বলে মার্কিন সরকারের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা টমাস ফিলিপসন।

মার্কিন সরকারের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা টমাস ফিলিপসন মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন-কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ তথ্য জানিয়েছেন। মার্কিন সরকারের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা টমাস ফিলিপসন দাবি যে, তখনই ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সতর্ক করা হয়েছিল যখন ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে গোটা দুনিয়া যখন নভেল করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা সম্পর্কে বিন্দুমাত্র আঁচ করতে পারেনি। মার্কিন সরকারের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা টমাস ফিলিপসন বলেন তখনই ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সতর্ক করা হয়েছিল যখন নভেল করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা সম্পর্কে বিন্দুমাত্র আঁচ করতে পারেনি তাও তিনি কিছু করেনি।

মহামারীর আশঙ্কার কথা উল্লেখ করে ৪১ পাতার একটি প্রতিবেদনও হোয়াইট হাউসে জমা দিয়েছিলেন মার্কিন শীর্ষ অর্থনীতিবিদরা,এ কথা বলেন মার্কিন সরকারের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা টমাস ফিলিপসন। টমাস ফিলিপসন বলেন ৪১ পাতার একটি প্রতিবেদনে তাতে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নেয়ার কথাও বলা হয়েছিল।মার্কিন সরকারের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা টমাস ফিলিপসন বলেন কিন্তু ট্রাম্প প্রশাসন অর্থনীতিবিদদের প্রতিবেদনটিকে অবজ্ঞা করেছিল। টমাস ফিলিপসন জানান ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজেও গুরুত্ব দিতে চাননি।

মহামারীতে আমেরিকায় পাঁচ লাখ মানুষ মারা যেতে পারে, সাক্ষাৎ‌কারে টমাস ফিলিপসন এ বলেন। ৪১ পাতার ওই প্রতিবেদনে সে আশঙ্কাও ব্যক্ত করা হয়েছিল বলে জানান মার্কিন সরকারের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা টমাস ফিলিপসন। তারা এ-ও জানিয়েছিলেন যে, এ মহামারীর ধাক্কায় আমেরিকার অর্থনৈতিক ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে ৩ দশমিক ৭৯ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার। মার্কিন প্রেসিডেন্ট একা নন, ট্রাম্প প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারাও সিইএ’র এ প্রতিবেদন সম্পর্কে অবহিত ছিলেন বলেন মার্কিন সরকারের সাবেক অর্থনৈতিক উপদেষ্টা টমাস ফিলিপসন।


তিনি ৩ বছর দায়িত্ব পালন করেছেন, টমাস ফিলিপসন ট্রাম্প প্রশাসনের কাউন্সিল অব ইকোনমিক অ্যাডভাইজারসের (সিইএ) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন হয়ে। জানা গেছে যে গত জুনে তিনি তাঁর পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতার পেশায় ফিরে গেছেন।

No comments:

Post a Comment