Breaking

Thursday, July 16, 2020

জানা গেছে যে পাওয়া যাবে করোনার ভ্যাকসিন আগস্টেই


জানা গেছে যে রাশিয়ার বিজ্ঞানীরা করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) ভ্যাকসিন আগামী এক মাসের মধ্যে বাজারে আনার ব্যাপারে আশা প্রকাশ করেছেন।
এ তথ্য জানানো হয় দ্য মস্কো টাইমস এর এক প্রতিবেদনে সোমবার (১৩ জুলাই)।
জানা যাই যে এই ভ্যাকসিনটি উদ্ভাবন করেছে রুশ রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান গামালি ন্যাশনাল রিসার্চ সেন্টার ফর এপিডেমিওলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজি। সম্ভাব্য এই ভ্যাকসিনটি উদ্ভাবন করেছে উল্লেখ করে প্রতিবেদনে বলা হয়।

জানা গেছে যে টিকার প্রয়োগ শুরু করে গত জুনে, মস্কোর দ্য সেচেনভ ফার্স্ট মস্কো স্টেট মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এর ৩৮ জন স্বেচ্ছাসেবীর ওপর।আরও জানা গেছে যে একই সময়ে রাশিয়ার সেনাবাহিনী একই টিকার দুই মাসের পরীক্ষা চালায়।

তিনি আশা করছেন, আগামী ১২-১৪ আগস্টের মধ্যে সম্ভাব্য টিকাটি জনসাধারণের প্রয়োগের জন্য বাজারে আনা যাবে এ কথা গামালি সেন্টারের প্রধান আলেক্সান্ডার গিন্টসবার্গ রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা তাসকে বলেন।
তবে সেপ্টেম্বর নাগাদ ব্যাপক হারে উৎপাদন শুরু করতে পারবে,বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো।

" গবেষণাটি শেষ হয়েছে" এ কথা সেচেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের প্রধান ইয়েলেনা স্মোলিয়ারচুক বলেছেন। সেচেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের প্রধান ইয়েলেনা স্মোলিয়ারচুক বলেছেন যে, টিকাটি নিরাপদ বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।

রিসার্চ সেন্টারের প্রধান ইয়েলেনা স্মোলিয়ারচুক আরও বলেন যে সেচেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বেচ্ছাসেবীদের ২৮ দিন আইসোলেশনে রাখার পর একটি দলকে বুধবার (১৫ জুলাই) এবং আরেকটি দলকে আগামী ২০ জুলাই ছাড়ার কথা রয়েছে।


সেচেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের প্রধান ইয়েলেনা স্মোলিয়ারচুক বলেন, স্বেচ্ছাসেবীদের বয়স ছিল ১৮ থেকে ৬৫ বছরের মধ্যে। রিসার্চ সেন্টারের প্রধান ইয়েলেনা স্মোলিয়ারচুক বলেন আগামী ছয় মাস তাদের পর্যবেক্ষণ করা হবে এই সেচেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বেচ্ছাসেবীদের।
জানা যাই যে প্রতিষেধক বা টিকা উদ্ভাবনের চেষ্টা চলছে করোনাভাইরাসের মহামারি বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে এরই মধ্যে বেশ কিছু সম্ভাব্য টিকা উদ্ভাবনের দাবিও করেছে অনেকেই।

সেচেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের প্রধান ইয়েলেনা স্মোলিয়ারচুক বলেছেন যে করোনাভাইরাসের মহামারি বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই এর প্রতিষেধক বা টিকা উদ্ভাবনের চেষ্টা চলছে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ওয়েবসাইটে সারা বিশ্বে টিকা তৈরির নানা উদ্যোগ নিয়ে একটি খসড়া তালিকা রয়েছে বলে জানা জাই। জানা গেছে যে এ পর্যন্ত এ তালিকায় ১৬০টি উদ্যোগের তথ্য ছিল গত সপ্তাহে। তারা এক মাসের মধ্যে করোনার টিকা আনার ব্যাপারে আশাবাদী এ কথা রাশিয়ার বিজ্ঞানীরা বলেছেন।

No comments:

Post a Comment